• Wed. Aug 4th, 2021

অতনু ঘোষের পরের ছবিতে আবার প্রসেনজিৎ!

ঋণ— একটি দু’ অক্ষরের শব্দ, কিন্তু তার বোঝা কম নয়। জীবনপথে চলতে-চলতে মানুষের আর্থিক ঋণের বাইরেও কত রকম ঋণ থেকে যায়। এই ঋণকে কেন্দ্র করেই মনস্তত্ত্বের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন পরিচালক অতনু ঘোষ, তাঁর পরবর্তী ছবি ‘শেষ পাতা’য়। ছবিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করবেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়, গার্গী রায়চৌধুরী, বিক্রম চট্টোপাধ্যায় ও রায়তী ভট্টাচার্য। ‘ময়ূরাক্ষী’ ও ‘রবিবার’-এর পরে প্রসেনজিৎ ফের অতনুর সঙ্গে কাজ করবেন। অভিনেতা বললেন, ‘অতনুর সঙ্গে এই নিয়ে তিনটি ছবিতে কাজ করছি। ওঁর স্টোরি টেলিং একদম অন্য রকমের। গল্পে আমি বাল্মীকি নামে এক লেখকের চরিত্রে, যার এক সময়ে বেশ নামডাক ছিল। কিন্তু তার জীবনেও অনেক ঘটনা ঘটে যায়… চরিত্র নিয়ে খুব বেশি এখনই কিছু বলতে পারব না আমি। তবে এটুকু বলতে পারি, এমন চরিত্রে আমি আগে অভিনয় করিনি। ভারতীয় সিনেমাতেও এমন চরিত্র খুবই কম তৈরি হয়েছে।’ এখন অভিনেতা মুম্বইয়ে আছেন। সেখানে কাজের ফাঁকেই চলছে ছবির প্রস্তুতি। সময় পেলেই পরিচালকের সঙ্গে জ়ুম কলে সেশনও চলছে নতুন ছবি নিয়ে।

আগে একসঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকায় বেশ নিশ্চিন্ত পরিচালকও। অতনুর কথায়, ‘উনি (প্রসেনজিৎ) সব সময়ে কমফর্ট জ়োন ভেঙে নতুন ধারার কাজ করতে খুব উৎসাহী। চরিত্র নিয়ে, ছবি নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষায় আগ্রহী। সেটাই আমায় বরাবর টানে ওঁর দিকে। এই ছবির গল্পে একদম অন্য রকম ওঁর চরিত্রটা। ছবির গল্প আবর্তিত হবে ঋণকে কেন্দ্র করে। আমরা কারও কাছে যেমন ঋণী, তেমনই অনেকে ঋণী আমাদের কাছেও। আর এই দুই প্রেক্ষিতেই মানুষের ভিন্ন সত্তা প্রকাশ পায়। সেটাই ছবির গল্পে চারটি চরিত্রের মনন ও তাদের যাপনের মাধ্যমে তুলে ধরব আমি।’

এই ছবিতে মেধার চরিত্রে দেখা যাবে গার্গীকে। চিত্রনাট্য পড়ে নতুন চরিত্রের জন্য নিজেকে তৈরি করতে শুরু করে দিয়েছেন গার্গী। গার্গীর কথায়, ‘এমন অনেক মানুষ আছে, যাকে হয়তো আমরা খিটখিটে, কিপটে… এ ভাবে চিনি, কিন্তু সেই মানুষটির অন্তরের আলো দেখাবে এ ছবি। এমনই একজন মানুষের বাড়িতে মেধা নিয়ে আসে লেখালিখির কাজ। সেই চরিত্রে রয়েছি আমি। ছবিতে আমার লুকটা একদম নতুন।’ আর একটা চমকও আছে। ছবিতে গার্গী নিজের কণ্ঠে গান গাইবেন।

এ রকম একটা ছবিতে সুযোগ পেয়ে বিক্রমও উত্তেজিত। প্রায় সাড়ে তিন বছর পরে তিনি ছবির শুটিং করবেন। অভিনেতার কথায়, ‘একে এত বছর পরে ছবির কাজ, তার উপরে অতনুদার মতো একজন পরিচালক, এত ভাল কাস্টিং… সব মিলিয়ে খুবই ভাল লাগছে আমার। এখন শুধু শুটিং শুরুর অপেক্ষায়। আমার চরিত্রটাও বেশ ইন্টারেস্টিং।’ ছবিতে নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলে শৌনকের চরিত্রে দেখা যাবে বিক্রমকে। তার বাবা কাজ করত ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে, কিন্তু প্রায় ছ’সাত বছর তার কাজ নেই। তার ছোট ভাই রয়েছে। ফলে সংসারের যাবতীয় দায়িত্ব শৌনকের কাঁধে। দীপার সঙ্গে শৌনকের প্রেম। গল্পে তাদের জার্নিটাও তুলে ধরা হবে। ছবিতে দীপার চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে নাট্যমঞ্চের পরিচিত মুখ রায়তী ভট্টাচার্যকে।

ছবির শুটিং সেপ্টেম্বর থেকেই শুরু হবে। কলকাতা, শ্রীরামপুর, শান্তিপুরে শুটিং হওয়ার কথা রয়েছে। তবে শুটিংস্পটের রেকি এখনও চলছে। যেহেতু অতিমারির মধ্যে শুটিং, তাই প্রযোজনা সংস্থাকেও এগোতে হচ্ছে সবটা পরিকল্পনা করে। ছবির প্রযোজক ফিরদৌসুল হাসানের কথায়, ‘অতিমারির মধ্যে এমন বিষয় তুলে ধরতে চাই, যা সিনেমাপ্রেমীদের মনের খোরাক জোগাবে। অতনুর সঙ্গে এটা আমাদের চতুর্থতম কাজ। আশা করি, এই ছবিটিও ‘ময়ূরাক্ষী’-র মতোই দর্শকের মন ছুঁয়ে যাবে।’